ঘরবন্দী ঈদ – Khoborbd24
ঈদ সংখ্যা

ঘরবন্দী ঈদ

সুমাইয়া জাহান সামিনা

একটা সময় ছিলো যখন ঈদ মানে ছিলো শুধু আনন্দ। ছিলো না কোনো দায়িত্ব। বোধহয় ঐ দিনগুলোই ভালো ছিলো।
আমার মনে আছে ছোটবেলায় চাঁদরাতে আমি আমার বাবার সাথে ঘুরতে বের হতাম।
শপিংমলে শেষ সময়ের কেনাকাটা করতাম, মেলায় যেতাম, অনেক রাত পর্যন্ত ঘুরতাম। পুরো শহর অন্যরকম এক ব্যস্ত থাকতো সেই রাতে। একটু বড় হবার পর থেকে শুরু হলো একটু একটু দায়িত্ব নেয়া। ঈদ এর দিন মায়ের সাথে রান্নাঘরে কাজ করতাম, ঘর গুছানো, আরো কত বাড়ির কাজ!!

জীবন আসলে বড্ড জলদি পালটে যায়। এইবার ঈদটা আরো অনেক বেশি দায়িত্বের। শুধু আমি বা আমার পরিবারের জন্য নয় পুরো দেশের জন্য আমাদের সবাইকে ঘরে থাকতে হবে। অনেক দিন বেঁচে থাকার ইচ্ছা কার না হয়? “মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভূবনে”- এটা প্রতিটা মানুষের মনের কথা। কিন্তু মৃত্যু অমোঘ।অতএব এ বিষয় নিয়ে এত ভয় পাওয়ার কিছু নেই বরং সচেতন হতে হবে ।
ভেবে দেখুন আমাদের জীবন কত ব্যস্ততায় ভরা। আমরা চাইলেই পরিবারকে সময়কে দিতে পারিনা। অবসর সময়ে ছোট ফোন হাতে পুরো বিশ্বকে সময় দিলেও নিজের পরিবারের দিকে আমাদের সময় দেয়া হয়না।
বন্দী ঈদ পালনকে কষ্ট বা হতাশায় পার না করে ভালোবাসতে শিখতে হবে। পরিবারকে সময় দেই, অহেতুক কেনাকাটা না করে এর অর্থ কোনো অসহায় পরিবারকে দেই তারা ভালো থাকুক, ঘরে থাকুক।
আসলে জীবনটা সুন্দর, শুধু যেকোনো অবস্থা থেকে তাকে উপভোগ করা জানতে হয়।উপভোগ শব্দটি উল্লেখ করলাম সচেতন ভাবেই, কারণ একেক জনের কাছে সেটা একেক রূপ নিয়ে আসে।সকাল এর মিষ্টি বাতাসে ফুলগুলো দোল খাচ্ছে, এ ওর গায়ে নুয়ে পড়ছে। উজ্জ্বল আলোয় ঝলমলে চারিপাশ। পাখিরা উড়ে উড়ে বসছে গাছের শাখায়, আবার পালিয়ে যাচ্ছে। কি এক আনন্দ প্রবাহমান প্রকৃতি জুড়ে।
খাঁচায় থাকা কে বন্দী হওয়া না ভেবে ভালোবাসতে হবে আমাদের, তবেই একদিন খোলা আকাশে ঘুরে বেড়ানোর আসল স্বাদটা বুঝতে পারবো।তখনই আমরা তা মূল্যায়ন করতে পারবো ।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us at Facebook

Default description


This will close in 30 seconds