ঠাঁই – Khoborbd24
সাহিত্য

ঠাঁই

মোফাখখারুল ইসলাম (দিপু)

মাথায় হেলমেট পরে দাঁড়িয়ে আছে অনু। উবার বাইক চলকের তারাহুড়ায় হেলমেট না নিয়েই চলে গেছে। বিন্তি অদ্ভুত ভাবে তাকিয়ে আছে, চেনা অবয়বে অচেনা লাগছে মানুষটাকে। পাগল ছেলেটা আজ হাটবে বলে এসেছে…আজ আমরা একসাথে পূর্ণিমার চাঁদ উঠা দেখবো…পাগল…

সংসদ ভবনের সামনের বকুল গাছগুলোর নিচ দিয়ে হাটা শুরু…ঝড়া বকুলের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। অনু উবার বাইকারের সাথে চিৎকার করে যাচ্ছে…হেলমেট হাতে নিয়ে। পেছনে সূর্যটা ডুবে যাচ্ছে, শেষ বিকালের চুরি যাওয়া আলোয় ওর মুখটা সোনালী লাগছে…

অনু দ্রুত কথা বলে যাচ্ছে, কথার ছন্দ বুঝতে মনযোগী হতে হয় ওর সাথে…বুঝলা বিন্তি সংসদ ভবনের ওখানে বসে আমরা ছেলে বেলায় চাঁদ উঠা দেখতাম..এই মাঠের মাঝখানে আড্ডা দিয়েছি কত… এপ্রিলের প্রথম বৃষ্টির পর এই মাঠের ঘাস সাদা ফুলের চাদড়ে ঢেকে যায়..ভেজা বাতাসে ঘাসের বুনো গন্ধ।

খেজুর বাগানের পূর্বের রাস্তাটা এলিভেটেড রাস্তার নির্মাণ কাজের জন্য সরু, নিরব আর অপরিচ্ছন্ন। জল কাদায় মাখা রাস্তা পার হতে অনু হাত বাড়িয়ে দেয়। সংসদ ভবনের মাঝখানের রাস্তায় এসে অনু থমকে দাঁড়ায়…এপ্রিলে এই রাস্তার উত্তর পাশটায় সোনালু ফোটে…ঝড়া সোনালু ফুলের উপর খালি পায়ে…তোমার হাটা দেখব…বিন্তির পায়ের নিচে সোনালু ফুলের পাপড়ী অনুভব করে…

অনেকটা পথ হেটে আমরা বসলাম ক্রিসেন্ট লেকের ব্রিজের পশ্চিমে। পূব আকাশে মেঘে ঢাকা পুর্নিমার চাঁদটা উকি দিলো, বিন্তি মোবাইল বের করে ছবি তোলার জন্য, অনু মোবাইলটা নিয়ে পকেটে রাখে..কিছুটা সময় শুধু আমাদের হোক!!! এলমুনিয়ামের চাঁদের রূপালী আলোয় ভরে ক্রিসেন্ট লেক…বিন্তি এসে অনুর গা ঘেসে বসলো..

অভিলাষী মন চন্দ্রে না পাক, জ্যোৎস্নায় পাক সামান্য ঠাঁই….

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Like us at Facebook

Default description


This will close in 30 seconds